Starting is the hardest part they say, also exploring a new workplace is quite intimidating. However, it also has its own spark as it’s the beginning of something great. Therefore, don’t wish away first few days of your new workplace!

https://mon-break.com/55376-paxlovid-china-order-72783/ একটা নতুন চাকরি আনন্দ ও এক্সসাইটমেন্ট এনে দেয়। তবে নতুনভাবে সহকর্মীদের সাথে সেই পরিবেশে পরিচয় অনেক সময় ঘাবড়েও দিতে পারে। সবাই যতই বন্ধুত্বপূর্ণ কথা বলুক না কেন?
একটা সময় নিজেকে বিচ্ছিন্ন বিচ্ছিন লাগতে থাকে। কোথাও গিয়ে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেওয়া কঠিন।
তাই নতুন কর্মস্থানে নিজেকে মানিয়ে নেয়ার কিছু টিপস আপনাদের জন্য উপস্থাপন করা হল। 


https://diabetesfrees.com/important-facts-about-diabetes/ ভয় কে করতে হবে জয়
চাকরির প্রথম দিন থেকেই আপনার মধ্যে একটা ভয় কাজ করে ব্যর্থ হওয়ার।
বিশেষ করে চাকরি হারানোর ভয়। এভাবে ভয় পাওয়াটা নিতান্তই বোকামি। প্রথম দিনেই আপনাকে কেউ চাকরি থেকে বরখাস্ত করবে না। এই ভয় যদি প্রথম দিকেই কাঁটিয়ে উঠতে পারেন তাহলে কর্মক্ষেত্রে খুব বড় একটা স্বস্তি পাবেন।

Yurga paxlovid prescription before travel কথায় নয় কাজে পরিচয়
নতুন অফিসে খাপ খাওানোর সর্বোত্তম উপায় হচ্ছে নিজের কাজের মাধ্যমে স্ট্যান্ড-আউট করা।
দায়িত্ব বুঝে নিয়ে কাজের মধ্যে নিজের বেস্টটা উপস্থাপন করুন।  যখন কাজের প্রশংসা শুনবেন আপনার ভয় নিজে নিজেই কমে যাবে এবং হয়ে উঠবেন আত্ববিশ্বাসী।

Einbeck how much will paxlovid cost in canada অভিযোগ করার সুযোগ দিবেন না
যেখানে কাজ করা শুরু করছেন সেখানে অবশ্যই কিছু নির্দিষ্ট নিয়মনীতি আছে।
সেগুলো জেনে নিন এবং খেয়াল রাখুন কোন নিয়ম যেন ভঙ্গ না হয়। সব অফিসেই কিচেন বা লাঞ্চ বিষয়ক কিছু রুলস থাকে। যেমন প্লেট বা গ্লাস জায়গা মত রাখা অথবা নির্দিষ্ট খাবারের সময়ে খেয়ে নেয়া এইসব সঠিকভাবে অনুসরণ করুন।


https://parquejoyero.es/26820-paxlovid-cost-cash-63200/ সহকর্মীদের সাথে সম্পর্ক
অফিসে সবার সাথে মেশার আগে অফিসের আবহাওয়া বোঝার চেষ্টা করুন।

সহকর্মীরা একে অপরের সাথে কিরুপ আচরণ করে তা পর্যবেক্ষণ করুন। তারা একে অপরের সাথে খুব ফ্রেন্ডলি নাকি খুব ফর্মাল। একবার এই টোন বুঝতে পারলে তাদের সাথে আপনি আরও ভালভাবে মিশতে পারবেন

cost of paxlovid in canada আপনার লক্ষ্য সেট করুন
নতুন কর্মক্ষেত্রের উদ্বেগ কমানোর জন্য নিজেকে ডিস্ট্র্যাক্ট করতে পারেন ছোট ছোট লক্ষ্য সেট করার মাধ্যমে। এই লক্ষ্যগুলো সামনে রেখে কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন এবং এড়িয়ে যেতে পারেন নতুন পরিবেশে কাজ করার চাপ। তাছাড়া এভাবে আপনি ধিরে ধিরে নিজের কমফোর্ট-জোন থেকে বেরিয়ে আসতে পারেন।

নতুন কর্মক্ষেত্র নিয়ে আপনার কোন অভিজ্ঞতা, উপদেশ অথবা প্রশ্ন থাকলে শেয়ার করুন আমাদের সাথে।
  • Read more about coping up strategies to reduce stress at your new workplace here.
  • New workplace means new responsibilities and stress. While you are coping up with such stress you certainly need to prove yourself at office as well here.